• Home
  • All News
  • গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে গুঞ্জনঃ পদপ্রত্যাশী অনেকেই অছাত্র

গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে গুঞ্জনঃ পদপ্রত্যাশী অনেকেই অছাত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক, চন্দনাইশঃ 


তৎকালীন তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেরণায় ও পৃষ্ঠপোষকতায় একঝাঁক সূর্যবিজয়ী স্বাধীনতাপ্রেমী তারুণ্যের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় এশিয়া মহাদেশের ‘বৃহত্তম’ ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ইতিহাস জাতির মুক্তির স্বপ্ন, সাধনা এবং সংগ্রামকে বাস্তবে রূপদানের ইতিহাস।

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার আগে ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ছিল ছাত্রদের দ্বারাই পরিচালিত হবে এই ছাত্র সংগঠন।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার ছাত্ররাজনীতির অন্যতম প্রাণকেন্দ্র গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজ ঘিরে রয়েছে ছাত্রলীগের গৌরব গাঁথা ইতিহাস। এক সময়ে এলডিপি ও জামাত-শিবিরের দূর্গখ্যাত দক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার এই কলেজের ছাত্রলীগের নের্তৃত্বেই স্বাধীনতা বিরোধী জামাত-শিবিরের সকল নাশকতা ও বর্বরতাকে রুখতে সক্ষম হয়েছিল। জানা যায়, ২০০৯ সালে মঈন উদ্দিন বাপ্পীকে সভাপতি ও হামিদুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে ছাত্রলীগের কমিটি করা হলেও দীর্ঘ ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও নতুন করে আর কোন কমিটি গঠন করা হয়নি। এতে করে সংগঠনটি তার স্বাভাবিক গতি শক্তি হারাচ্ছে এবং কলেজ কেন্দ্রিক বিভিন্ন গ্রুপিং রাজনীতির উদ্ভব ঘটছে। সম্প্রতি কলেজ ক্যাম্পাসে পদ প্রত্যাশীদের পোস্টার সাঁটানো ও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা লক্ষ্য করা যাচ্ছে; এতে করে গুঞ্জন উঠেছে খুব শীঘ্রই বহুল প্রতীক্ষিত গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষিত হতে যাচ্ছে। আর এতেই সরব হয়ে গেছে কলেজের সাবেক ছাত্র, দীর্ঘদিনের অছাত্ররাও।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত কলেজের এক ছাত্রলীগ নেতা জানান, "হঠাৎ করে কলেজ ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের আশেপাশের এলাকায় মোঃ ইফতেখারুল হক চৌধুরী মাহিন নামে এক সাবেক ছাত্রলীগ নেতার অনুসারীরা তাকে সভাপতি পদে দেখতে চাই বলে ব্যানার-পেষ্টান সাঁটান। যদিও আমার দীর্ঘ এই কলেজ জীবনে উনাকে ছাত্রলীগের ব্যানারে কোন কর্মসূচি পালন করতে দেখিনি'।

গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজর সাবেক শিক্ষার্থী ও জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র এক নেতা জানান, "মোঃ ইফতেখারুল হক চৌধুরী মাহিন গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজ থেকে ২০১১ সালে এইসএসসি এবং ২০১২/২০১৩ শিক্ষাবর্ষে ডিগ্রি পাস কোর্সে ভর্তি হয়ে ২০১৫ সালে পাশ করেন। বর্তমানে কলেজে তার কোন এডমিশন না থাকা সত্ত্বেও তার অনুসারীরা তাকে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী হিসেবে দেখতে চাই বলে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন"।


তিনি আরো বলেন, "নতুনদের নের্ত্বতে আসার সুযোগ করে দেওয়াই হল একজন প্রকৃত ছাত্রলীগ কর্মীর পরিচয়। আমার জানা মতে মাহিন বিবাহিত ও চাকুরীজীবী; বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র মতে বিবাহিত ও চাকুরীজীবী কেউ চাইলেও নিজেকে আর ছাত্রলীগ বলে দাবী করতে পারবে না৷ মুজিবাদর্শের একজন সৈনিকের উচিৎ সংগঠের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকা”। 

বিগত কয়েকবছর ধরে কলেজ ছাত্রলীগের সক্রিয় এক নেতা বলেন, “আমরা চাই বর্তমান শিক্ষার্থীদের নিয়ে একটি কার্যকরী কমিটি গঠন করা হউক যাতে করে প্রাণের এই কলেজ ক্যাম্পাস পূর্বের ন্যায় মুখরিত হোক আর সৃষ্টি হোক শত শত মুজিব”।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে জেলা ছাত্রলীগের নের্ত্ববৃন্দ জানান, গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজসহ জেলার সকল সরকারি কলেজের কমিটি হবে সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী; গঠনতন্ত্রের বাহিরে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।

Most Read

Popular News